শিরোনাম:
ঢাকা, মঙ্গলবার, ৩ আগস্ট ২০২১, ১৯ শ্রাবণ ১৪২৮

Natun Khabor
সোমবার ● ৩১ আগস্ট ২০২০
প্রচ্ছদ » মুক্তমত » মেঘের পরে মেঘ ছিল সারি সারি
প্রচ্ছদ » মুক্তমত » মেঘের পরে মেঘ ছিল সারি সারি
২২১ বার পঠিত
সোমবার ● ৩১ আগস্ট ২০২০
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

মেঘের পরে মেঘ ছিল সারি সারি

মিরন আহমেদ

---

নিশীথ রাত, আর দু-এক ঘণ্টা পরে ফুটবে ভোরের আলো। সবাই ঘুমে আচ্ছন্ন। গ্রামাঞ্চলে হয়তো নেমে এসেছে শীতের আবহ। ঘরের টিনে কুয়াশার টুপ টাপ শব্দ আর দূর থেকে ভেসে আসছে কুকুরের হাঁক-ডাক। তবে পাহাড়ের সকালটা অন্য রকম হয়।

যদি জিজ্ঞেস করেন কি রকম? তাহলে আমি অত ভালো বলতে পারবো না। কারণ আমি ভালোবাসা অনুভুতি একটু কম প্রকাশ করতে পারি। তবে অন্তরে যেটুক তার সবটুকই বিশুদ্ধ। যাক সে সব কথা।

ছোট ছোট কিছু ভালো লাগা, ভালোবাসা কাজ করে সব সময়। এই যেমন আমি সমুদ্র ভালোবাসি, কিংবা সমুদ্রের বেলাভুমিতে দাড়িয়ে কফি কাপে চুমুক দিয়ে দূর দিগন্তে হারিয়ে যাওয়া। বছরে তিন থেকে চার বার সমুদ্রে যেয়ে ঝাপাঝাপি না করলে সারা বছরটা কাজে মন লাগাতে পারি না। সমুদ্রের রাতের দৃশ্যটা আমার কাছে ভালো লাগে। গহীন সাগরে দুরে ভেসে থাকা ফিশিং ট্রলার অথবা দূরগামী কোন জাহাজের লাল নীল বাতি আমাকে প্রবলভাবে আকর্ষণ করে, মুগ্ধ করে। আমাকে টানে, মাঝেমধ্যে ইচ্ছে হয় আমি সাঁতার কেটে সমুদ্র অর্জন করি। সমুদ্রের একটা ভাষা আছে বছরের-পর-বছর সমুদ্র দর্শন করলে সেই ভাষা বোঝা যায়। আর ভাষা যে বুঝবে সেই সমুদ্রের প্রেমে পড়বে।

এরপর পড়ন্ত বিকেলে যখন ছোট ছোট মেঘগুলো বাতাসে উড়ে উড়ে দূরে ভেসে যায় তখন কিন্তু অন্যরকম অনুভূতি। আমি একবার সমুদ্র নামলে তিন ঘন্টার আগে উঠি নাই কখনো। আর এই সুখ্যাতি আমার বন্ধু মহলে বেশ পরিচিত।

যাইহোক বাদ দিলাম সমুদ্রের কথা আরেকদিন সমুদ্রের গল্প শোনাবো। সমুদ্র ভালবাসি ঠিক তাই বলে যে পাহাড় ভালোবাসি না তা কিন্তু নয়! আমি পার্বত্য অঞ্চলে সুযোগ পেলেই ছুটে যাই। নীলগিরি নীলাচল কিংবা অন্য কোন সবুজ অরণ্যের মাঝে এই যেমন কাপ্তাইয়ের সৌন্দর্য, রাঙ্গামাটির মাটি বান্দরবানের সবুজ বন সবকিছুই আমার ভালো লাগে। বিশেষ করে পাহাড়ে সকালটা অন্যরকম। সারিসারি মেঘের পরে মেঘ ভেসে আসে মেঘ ছুটে যায়। কেমন একটা অদ্ভুত মায়া কাজ করে। আমি সুযোগ পেলেই বন্ধুদের নিয়ে ছুটে যাই সমুদ্র থেকে পাহাড় কিংবা পাহাড় থেকে ঝর্ণা, ঝর্ণা থেকে শৈবাল তারপর বেলাভূমি সূর্যাস্ত ও সূর্যোদয় আরো মেঘের পরে মেঘ।

আমি নিরঙ্কুশ চিত্তে ভাবতে ভালোবাসি ইস আমি যদি মেঘ হতাম কিংবা আমি যদি মেঘের সঙ্গে ভেসে যেতাম, যদি ঝর্ণা হতাম, যদি সমুদ্র হতাম। এরকম খেয়ালিপনার আমার ইচ্ছেদের কোন শেষ নেই লিখে শেষ করা যাবে না।

কত রাত যে নির্ঘুমে কেটেছে এসব ভাবতে ভাবতে তার ইয়ত্তা নেই। আমি প্রকৃতি থেকে শিখেছি অনেক কিছু। সমুদ্র পাহাড় আমাকে শিখিয়েছে ক্ষমা করতে। আর সমুদ্রের জেলেরা শিখিয়েছে কিভাবে ধৈর্য ধরতে হয়। সৃষ্টিকর্তার অপার দান প্রান প্রকৃতির কাছে আমি অনেক ঋনী। তাই প্রকৃতির কাছে কৃতজ্ঞতা শিকার না করলে অকৃতজ্ঞের সামিল হবে। পেয়েছি অনেক কিছু। এই যেমন মেঘ যখন পাহাড়ের গায়ে হেলে পড়ে কিংবা পাশ কাটিয়ে চলে যায় তখন অভিমানে আক্ষেপ হয়। মেঘের অনেক নাম আছে। কালিয়া মেঘ, প্রভাতী মেঘ, কাজল মেঘ, ধূলট মেঘ, তুলট মেঘ, আড়িয়া মেঘ, হাড়িয়া মেঘ, সিঁদুর মেঘ, কানা মেঘ, কালো মেঘ, কুড়িয়া মেঘ, ফুলতোলা মেঘ- আরও কত কি! বারিবাহন, জলধর, কাদম্বিনী, জীমূত, ঘন, বারিবাহ, নীরদ, সংবর্তক, জলদ, বারিদ, পয়োদ, অভ্র, পর্জন্য, পয়োমূক- আরো কতশত ডাকনাম!

কতগুলো গ্রামবাংলার ভাষায় প্রবাহমান সুপ্রাচীনকাল থেকে, আবার কতগুলো শিক্ষিতজনদের দেওয়া। শুধু ডাকে না, পল্লীবাসিরা চিনতেন মেঘকে, বুঝতে পারেন মেঘের ভাষা। প্রবীণেরা তাই মেঘ দেখেই আবহাওয়ার আভাষ পেয়ে যান। আমাদের প্রতিদিনকার আকাশের সঙ্গী হরেক রকম মেঘে থাকে। তবে মেঘ দেখতে বা ধরতে যেতে হবে পাহাড়ে। সাজেকেও হতে পারে। অসংখ্য পাহাড়ের বন্ধনে সবুজে ঢাকা অপরূপ সাজেকের পথঘাট। বৃষ্টিতে সবুজে ঢাকা এই পথ আরও উজ্জ্বল হয়ে ওঠে। কালো মেঘ বারবার হাতছানি দেয় বৃষ্টি। ঝমঝমিয়ে বৃষ্টি নামে প্রায়শ বৈশাখের শেষ আর জ্যৈষ্ঠের শুরুর দিকে সাজেকে থাকে সবুজের সমারোহ। সাদা মেঘের কুন্ডলী বিস্তৃত গভীর উপত্যকা থেকে বেয়ে ওঠে। সবুজ পাহাড়ের চূড়া ঘিরে রয়েছে সাদা মেঘের আবরণ।

একদিন এক মন খারাপের বিকালে আমি সব ভুলে গিয়েছিলাম। সমুদ্র পাহাড় কোন কিছু মনে পড়ছিল না। তারপর হন্যে হয়ে কল্পনাতে পাহাড়ে গেলাম। পাহাড় আমায় বললো সমুদ্রে যাও, সেখানে মেঘ পাবে। আমি সমুদ্রে এলাম। সারি সারি সাদা মেঘ তখন দল বেধে ছুটছে।

আমি জিজ্ঞেস করলাম, মেঘ কোথায়, মেঘ ধরবো। সমুদ্র আমাকে বললো ধুর বোকা ছেলে, মেঘ ধরতে সমুদ্রে আসে কেউ? মেঘে থাকে পাহাড়ে। তুমি পাহাড়েই মেঘ ধরতে পারবে। শুনে আমার ভিষন অভিমান হলো, খুব কাদতে ইচ্ছে হলো। আমিতো পাহাড় থেকেই সমুদ্রে গেলাম। তাও মেঘের দেখা নেই। তাহলে বাড়ি যাই। সন্ধ্যা হচ্ছে যে, মা বকবে। মেঘ বললো, যাও তবে। মন খারাপ করোনা। তুমি লিখো মেঘের পরে মেঘ ছিল।

লেখক: মিরন আহমেদ, সাংবাদিক। mdmiron71@gmail.com





আর্কাইভ

রিয়াদের বিদায়, লড়ছেন সাকিব
বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া: মুখোমুখি ৪ টি-টোয়েন্টির পরিসংখ্যান
প্রতিপক্ষ অস্ট্রেলিয়া, টাইগারদের সম্ভাব্য একাদশ
অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ
নতুন লুকে ক্যারিশম্যাটিক শাহরুখ খান
ঢাবি অধ্যাপকের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা
অক্সিজেন সংকট নিরসনের দাবিতে করোনা ইউনিটের সামনে বিক্ষোভ
সারাদেশে একদিনে আরও ২৬৪ ডেঙ্গু রোগী