শিরোনাম:
ঢাকা, মঙ্গলবার, ৩ আগস্ট ২০২১, ১৯ শ্রাবণ ১৪২৮

Natun Khabor
বৃহস্পতিবার ● ৪ জুন ২০২০
প্রচ্ছদ » ছবি গ্যালারি » কালো চামড়া, সাদা মুখোশ দিয়ে কালোর ন্যায্যতা প্রতিষ্ঠিত হবে?
প্রচ্ছদ » ছবি গ্যালারি » কালো চামড়া, সাদা মুখোশ দিয়ে কালোর ন্যায্যতা প্রতিষ্ঠিত হবে?
৩৩১ বার পঠিত
বৃহস্পতিবার ● ৪ জুন ২০২০
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

কালো চামড়া, সাদা মুখোশ দিয়ে কালোর ন্যায্যতা প্রতিষ্ঠিত হবে?

---
পত্রিকার শীর্ষখবর যখন: ‘ফ্লয়েড হত্যার প্রতিবাদে উত্তাল বিশ্ব’, তখন সর্বাধিক পঠিত তালিকায় সবার উপরে মুচকি হাসছে: ‘রাতারাতি ত্বক ফর্সা করার ৯টি ঘরোয়া টিপস!’

‘Black Lives Matter’ আমরা বলছি বটে; কিন্তু ‘ফেয়ার অ্যান্ড লাভলী’ নামটা বদলে যদি ‘ব্ল্যাক অ্যান্ড লাভলী’ রাখা হয় তাহলে কি বিক্রি হবে? খুব ছোটো কথা: সাদা (সমস্ত ভালো) vs কালো (সমস্ত মন্দ) এই ইমেজ থেকে আমরা কি কখনো বের হতে পারব? যে দেশে ৯৯ ভাগ কালো মানুষের বাস, তারাও কি বলে ‘আইন অমান্যকারীকে ‘ব্লাকলিস্ট’ করা হলো’? কিংবা এই যে আমরা, মোটেও সাদা নই, সাদা ইউরোপীয়দের তুলনায় বরঞ্চ কালোই। অন্তত বর্ণবাদী মানসিকতা সম্পন্ন সাদারা আমাদের কালোই মনে করে।

কিন্তু আমাদের শান্তির রঙ সাদা তো? শোকের দিনে আমরা কালো পোশাক পরি না? ইউরোপ-আমেরিকার কালোরাও বিয়ের দিনে সাদা পোশাক কেনো পরে? এই যে আমাদের বাণী চিরন্তনী: নদীর জল ঘোলাও ভালো, জাতের মেয়ে কালোও ভালো; তার মানে আমাদের কাছে ‘ঘোলা জল=কালো মেয়ে’, তাই তো? নিজেরা কালো হয়েও সাদা হওয়ার ভান করে কালোকে এমন তুচ্ছতাচ্ছিল্য আর কত? নিজেকে এইভাবে অপমান তো পাগলেও করে না!

এই যে জেনেসিসে সৃষ্টির কথা বলতে গিয়ে বলা হচ্ছে, God “separate light from darkness” on the First Day. যিশুখ্রিস্ট যদি কালো হতেন তাহলে সেটি God “separate light from whitness..’ হত কিনা বলতে পারি না। হয়ত হতো না কারণ বাইবেল আসার আরো অনেক আগেই ব্ল্যাক মানে কালো=অন্ধকার এবং হোয়াইট মাসে সাদা=আলো—এই এনালজির প্রতিষ্ঠা হয়ে গেছে। এই প্রতিষ্ঠার ফলে যিশু কোনোদিনই কৃষ্ণাঙ্গ হতেন না, মানে কালোদের মধ্য থেকে ঈশ্বরের এত বড়ো পোস্ট নিয়ে কেউ সাদাদের মধ্যে দাঁড়াতেই পারতেন না।

বলতে চাচ্ছি, নিয়ত সাদা হওয়ার সাধনা দিয়ে কি বর্ণবাদবিরোধী আন্দোলন সম্পূর্ণ সফল করা যাবে? কালো চামড়া, সাদা মুখোশ (black skin, white masks) দিয়ে কালোর ন্যায্যতা/অহংবোধ প্রতিষ্ঠিত হবে?

তাও তো আসার কথা, ইউরোপ-আমেরিকায় সম্ভবত পঁচাশিভাগ বা তারও বেশি শেতাঙ্গ কৃষ্ণাঙ্গদের অধিকার নিয়ে রাজপথে আন্দোলন করছে। আর আমরা সম্ভবত পচানব্বই ভাগ পড়ে আছি ‘ফেয়ার অ্যান্ড লাভলী’ নিয়ে। ফর্সা মেয়ে সুন্দর এবং বাড়ির অনাগত সন্তান ফর্সা হতে হবে, কাজেই ফর্সা মেয়ে বিয়ে করো। ফ্লপ খাওয়া যাবে না, ফর্সা মেয়ে নায়িকা করো। চুল করার কালো কালির বিজ্ঞাপনেও ফর্সা মেয়ে আনো।

আর আফ্রিকার অবস্থা?

২০১৮ সালে এক অভিযান চালিয়ে ইংল্যান্ডের সাউথওয়ার্ক কাউন্সিল ২৯০০ রং ফর্সাকারী পণ্য জব্দ করে, যেগুলোর বেশিরভাগই নাইজেরিয়া থেকে সরাসরি আমদানি করা হয়েছিল। বোঝেন অবস্থা!!

কাজেই…রাজপথে ‘Black Lives Matter’ এবং শোবার ঘরে ‘Long live Fair and Lovely’

লেখক: গল্পকার





আর্কাইভ

রিয়াদের বিদায়, লড়ছেন সাকিব
বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া: মুখোমুখি ৪ টি-টোয়েন্টির পরিসংখ্যান
প্রতিপক্ষ অস্ট্রেলিয়া, টাইগারদের সম্ভাব্য একাদশ
অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ
নতুন লুকে ক্যারিশম্যাটিক শাহরুখ খান
ঢাবি অধ্যাপকের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা
অক্সিজেন সংকট নিরসনের দাবিতে করোনা ইউনিটের সামনে বিক্ষোভ
সারাদেশে একদিনে আরও ২৬৪ ডেঙ্গু রোগী