অভিনয়ের প্রলোভন দিয়ে পরিচালক শামীমের বিরুদ্ধে তরুণীকে ধর্ষণের অভিযোগ

গাজীপুর প্রতিনিধি।।
গাজীপুরে সিনেমায় অভিনয়ের সুযোগ দেওয়ার কথা বলে এক তরুণীকে (১৯) ‘ধর্ষণের’ অভিযোগ পাওয়া গেছে।

গতকাল শুক্রবার রাতে ‘ধর্ষণের শিকার’ ওই তরুণী বাদী হয়ে জয়দেবপুর থানায় তিনজনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন।

মামলার প্রধান আসামি হলেন গাজীপুর জেলা শহরের বিলাশপুর (বাসস্ট্যান্ডের উত্তরে) এলাকার বাসিন্দা মো. মিজানুর রহমান শামীম (৫৩)। অন্য দুই আসামি হলেন- আতিক (৩০) ও মো. মামুন (২৬)।

মামলার সূত্রে জানা যায়, ওই তরুণী তাঁর বোন ও ভাগিনাদের সঙ্গে ঢাকার সাভার থানার ফুলবাড়ি শোভাপুর এলাকায় ভাড়া বাসা থাকেন। তিনি মডেলিংয়ের কাজ করেন। শামীম নাটক ও চলচ্চিত্র তৈরির কাজ করেন।

সম্প্রতি, শামীম ওই কিশোরীকে নির্দিষ্ট সম্মানীতে নাটক ও সিনেমায় অভিনয় করার প্রস্তাব দেন। প্রস্তাবে রাজি হয়ে ঢাকা থেকে গত ৮ এপ্রিল সকাল ৯টার দিকে তিনি গাজীপুরের নীলেরপাড়ায় ভাড়াকৃত এক শ্যুটিং স্পটে যান। সেখানে অন্যান্য শিল্পীদের সঙ্গে ওই তরুণী অভিনয়ও শুরু করেন বলে মামলায় অভিযোগ করা হয়েছে।

কিন্তু ১০ এপ্রিল রাত ১০টার দিকে শামীম তার ঘরে ঢুকে ভয় দেখিয়ে ধর্ষণ করেন বলে অভিযোগ করেন ওই তরুণী। এ সময় আতিক ও ক্যামেরাম্যান মামুন ঘরের বাইরে দরজায় পাহারা দিচ্ছিলেন।

এর পরেও মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে ওই তরুণীকে একাধিকবার ‘ধর্ষণ’ করেন শামীম। এমনকি তাঁর স্বল্পদৈর্ঘ্য সিনেমায়ও অভিনয় করতে বাধ্য করা হয়।

মামলায় আরো বলা হয়েছে, সর্বশেষ ২৩এপ্রিল আবারও ধর্ষণের শিকার হলে কৌশলে স্পট থেকে বের হয়ে যান ওই তরুণী। পরে স্থানীয় লোকজনকে সব ঘটনা জানান। এ ঘটনার পর তিনি শারীরিক ও মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েন।

পরে অভিভাবকের সঙ্গে কথা বলে সিদ্ধান্ত নিতে দেরি হওয়ায় মামলা করতে বিলম্ব হয়েছে বলে পুলিশকে জানান ওই তরুণী।

তবে, শামীম কোন প্রতিষ্ঠান থেকে নাটক বা সিনেমা তৈরি করছিলেন তা তিনি বলতে রাজি হননি।

জয়দেবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আমিনুল ইসলাম জানান, আজ শনিবার ওই তরুণীকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। আসামিদের কাউকে এখনও গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি বলেও জানান এই কর্মকর্তা।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *