আটকের পর বিডিজবসের সিইও ফাহিমকে ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ

স্টাফ রিপোর্টার
বাংলাদেশে চাকরি খোঁজার অন্যতম ওয়েবসাইট বিডিজবসের প্রধান নির্বাহী (সিইও) ও প্রতিষ্ঠাতা এ কে এম ফাহিম মাসরুরকে আটকের পর ছেড়ে দিয়েছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) কাউন্টার টেরোরিজমের সাইবার ক্রাইম ইউনিট। গতকাল বুধবার তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) আইনের ৫৭ ধারায় দায়ের করা মামলায় জিজ্ঞাসাবাদের পর বিকালে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে কাউন্টার টেরোরিজমের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার নাজমুল ইসলাম ও ডিএমপির উপ-কমিশনার (জনসংযোগ) মাসুদুর রহমান জানিয়েছেন। বিডিজবস প্রধান ফাহিম মাসরুর বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেসের (বেসিস) সাবেক সভাপতি।
ডিসি মাসুদুর রহমান জানান, জিজ্ঞাসাবাদের পরই মুচলেকা নিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে ফাহিম মাসরুরকে। তবে তার বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলায় তদন্ত চলছে। তদন্তে এখনো তার ফেসবুক অ্যকাউন্ট থেকে উস্কানিমূলক কিছু পাওয়া যায়নি।
সিটিটিসির সাইবার ক্রাইম ইউনিটের অতিরিক্ত উপকমিশনার নাজমুল ইসলাম বলেন, তার বিরুদ্ধে একটি মামলা হয়েছে। সেই অভিযোগেই তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিয়ে আসা হয়েছিল। কিন্তু তার ফেসবুক ঘেঁটে আমরা এখনও তেমন কিছু পাইনি। এ জন্য মুচলেকা নিয়ে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে অধিকতর তদন্ত চলমান রয়েছে। সাইবার ক্রাইম ইউনিট সাধারণ মানুষকে হয়রানি করে না বলেও মন্তব্য করেন তিনি।
এর আগে, গতকাল বুধবার সকালে ফাহিম মাসরুরকে কাওরান বাজারের বিডিবিএল ভবনের নিজ কার্যালয় থেকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করে নিয়ে যায় সিটিটিসি ইউনিট। গত রোববার রাজধানীর কাফরুল থানায় দায়ের করা এক মামলায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাকে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল।
কাফরুল থানার উপ-পরিদর্শক রফিক জানান, তার বিরুদ্ধে থানায় ৫৭ ধারার একটি মামলা আছে। গত ২২ এপ্রিল সাবেক ছাত্রলীগ নেতা মোঃ আল সাদিক এ মামলাটি দায়ের করেন। মামলায় তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময় প্রধনমন্ত্রী ও সরকারবিরোধী বিভিন্ন ছবি ও পোস্ট দেওয়ার অভিযোগ আনা হয়েছে।
এ বিষয়ে মামলার বাদী সাবেক ছাত্রলীগ নেতা সাদিক খান বলেন, মাশরুর তার ফেসবুকে দীর্ঘদিন ধরে উষ্কানিমূলক পোস্ট দিয়ে দেশ ও সরকারবিরোধী অপপ্রচার চালিয়েছেন। তার এসব উষ্কানিমূলক বক্তব্য আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ও অরাজকতার জন্য দায়ী। এ কারনে গত ২২ এপ্রিল মামলাটি দায়ের করেছি। মামলায় তার বিরুদ্ধে ৮ সুনির্দিষ্ট বিষয়ে অভিযোগ তোলা হয়েছে বলেও জানান সাদিক খান। মামলার এজাহারের সঙ্গে ফাহিম মাসরুরের বিভিন্ন ফেসবুক পোস্টের সংক্ষিপ্ত বিবরণ এবং এগুলোর স্ক্রিনশট সংযুক্ত করা হয়েছে। এর মধ্যে ১, ২ ও ৪ নম্বর স্ক্রিনশটে প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে ব্যাঙ্গাত্মক কার্টুন, ৫ নম্বর স্ক্রিনশটে প্রধানমন্ত্রীর পরিবারকে নিয়ে ব্যাঙ্গ, ৬ নম্বর স্ক্রিনশটে ‘চাকরি দে, নইলে উন্নয়নে খাবো’, ৭ নম্বর স্ক্রিনশটে ‘আজকাল যে দামে প্রশ্নপত্র বাজারে কিনতে পাওয়া যায়, তার’- এ ধরনের বিভিন্ন কথা বলা হয়েছে বলে এজাহারে উল্লেখ আছে।
ফাহিম মাশরুর প্রায় দেড় যুগ আগে বিডিজবস.কম প্রতিষ্ঠা করেন। এর মাধ্যমে দেশের চাকরির বাজারে অনলাইনভিত্তিক আবেদন এবং খোঁজখবর সহজ হওয়ায় দ্রুতই আলোচনায় উঠে আসে বিডিজবস। এছাড়াও তিনি দেশের প্রথম বাংলা সোশ্যাল মিডিয়া বেশতো এবং ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান আজকের ডিলের প্রধান নির্বাহী। তিনি দেশের সফটওয়্যার ও তথ্যপ্রযুক্তি সেবা খাতের সংগঠন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস)-এর ২০১২-২০১৩ মেয়াদে সভাপতির দায়িত্বও পালন করেছেন।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *