রাজধানীতে দুই বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ১ : আহত ১৭

স্টাফ রিপোর্টার

রাজধানীর পল্টন এলাকায় দুটি যাত্রাবাহী বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে এক বাসযাত্রী নিহত ও ৭ যাত্রী আহত হয়েছে। পল্টনের দুর্ঘটনার মাত্র আধা ঘণ্টা পরে তুরাগ এলাকায় দুটি বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে অন্তত ১০ জন আহত হন। দুটি দুর্ঘটনাই গতকাল সোমবার ভোরে ঘটে।

পুলিশ জানায়, সোমবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে সুপ্রভাত ও বেস্ট ট্রান্সপোর্টের দুই বাসের সংঘর্ষে ৮ জন আহত হন। পরে স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিয়ে যান। এ সময় কর্তব্যরত চিকিৎসক মিজান গাজী নামে এক যাত্রীকে মৃত ঘোষণা করেন। সুপ্রভাত পরিবহনের বাসটি আব্দুল্লাহপুর-সদরঘাট রুটে চলাচল করে। আর বেস্ট ট্রান্সপোর্ট পরিবহনের বাসটি মিরপুর-গুলিস্তান রুটে চলাচল করে। দুর্ঘটনার পর পর দুটি বাসের চালক পালিয়ে যান।

নিহত মিজান গাজীও পেশায় বাসচালক। তবে তিনি দুর্ঘটনায় পড়া একটি বাসের যাত্রী ছিলেন। স্ত্রী-সন্তান নিয়ে বাসাবো এলাকায় ভাড়া থাকতেন তিনি। পল্টনের ঘটনায় আহতরা হলেন- রাকিব (২০), শাহীন (২১), রিফাত ( ২৪), জয়নাল (৫০), বাবু (২১), সুদীপ চন্দ্র (২৭) ও সালাউদ্দিন (২০)। তাদের মধ্যে রাকিব ও রিফাত প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে বাসায় ফিরেছেন। বাকিরা ঢামেক হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন বলে জানিয়েছেন ঢামেক পুলিশ ফাঁড়ির ইনটার্জ এসআই বাচ্চু মিয়া।

এদিকে পল্টনের দুর্ঘটনার মাত্র আধা ঘণ্টা পর ভোর ৬টার দিকে উত্তরার তুরাগ এলাকায় দু’টি বাসের মধ্যে মুখোমুখি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় দু’টি বাসের প্রায় ১০-১২ জন যাত্রী আহত হন।

উত্তরা ফায়ার স্টেশনের সিনিয়র স্টেশন অফিসার মোঃ শফিকুল ইসলাম জানান, সোমবার সকালে নবীনগর থেকে জনসেবা পরিবহনের একটি বাস আব্দুল্লাহপুর যাচ্ছিল। একই সয়য় বিপরীত দিক থেকে আশুলিয়া ক্লাসিক পরিবহনের একটি বাস ঢাকা থেকে নবীনগর যাচ্ছিল। বাস দু’টি তুরাগের সাহেব আলীর মাদ্রাসা এলাকার কামারপাড়ায় পৌঁছলে মুখোমুখি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে আহত অবস্থায় ১০-১২ জনকে উদ্ধার করে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা। আহতদের মধ্যে মোঃ হাসান আলী (২৫) নামে এক চালকের অবস্থা গুরুতর। তার কোনও স্বজন না থাকায় ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার শফিকুল ইসলাম নিজেই তাকে জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতাল ও পুনর্বাসন কেন্দ্রে (পঙ্গু হাসপাতাল) ভর্তি করে দেন। হাসানের একটি পা ভেঙে গিয়েছে এবং মাথায় আঘাত পান। তার বাড়ি টাঙ্গাইল জেলার ধনবাড়ী এলাকায়। তার স্বজনদের খবর দেওয়া হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *